প্রদীপের বিরুদ্ধে নিন্ম আদালতে খারিজকরা মামলা নিতে জজ আদালতে রিভিশন

 ২০২০-১০-০৪ ২২:২৯:১৭   বিভাগ: আইন ও আদালত

মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী,  কক্সবাজার :

কারাগারে থাকা টেকনাফ মডেল থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ সহ ৫ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে নিন্ম আদালতে দায়েরকৃত খারিজ করা মামলা পূণরায় গ্রহণ করতে কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে রিভিশন আবেদন দায়ের করা হয়েছে। টেকনাফের নাজিরপাড়ার মোঃ বেলালের স্ত্রী ছমিরা বেগম বাদী হয়ে ৪ সেপ্টেম্বর রোববার রিভিশন আবেদন দায়ের করে। জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল রিভিশন আবেদনটি গ্রহন করে নিম্ম আদালতের নথি তলব করে পরবর্তী ধার্য দিনে এ বিষয়ে শুনানির আদেশ দিয়েছেন। কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি এডভোকেট ফরিদুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রিভিশন আবেদন এর সংক্ষিপ্ত বিবরণ হলো-চলতি বছরের ২১মে রাত সাড়ে ৯ টার দিকে টেকনাফের নাজিরপাড়া জামে মসজিদে রোজার তারাবী পড়াবস্থায় বাদীনীর স্বামী মোঃ বেলালকে বিনাকারণে টেকনাফ মডেল থানার পুলিশ ধরে নিয়ে যায়। পরে বাদীনী টেকনাফ থানায় যোগাযোগ করলে টেকনাফ মডেল থানার তৎকালীন ওসি প্রদীপ কুমার দাশ তাকে থানা কম্পাউন্ডের মাথিনের কূপের কাছে নিয়ে তার স্বামীকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। নতুবা ছমিরা বেগমের স্বামী মোঃ বেলাল ক্রসফায়ারে মারার হুমকি দেয়। পরদিন বাদীনী নিরুপায় হয়ে কোনরকমে ২ লক্ষ টাকা যোগাড় করে এসআই কামরুজ্জামান ও এএসআই ফকরুজ্জামানকে প্রদান করে। চাঁদা গ্রহণকারী পুলিশ সদস্যদ্বয় বাদীনীর কাছ থেকে আরো ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। দাবীকৃত চাঁদা দিতে না পারায় গত ২৩ মে মো: বেলালকে মাদক ও অস্ত্রের মামলা দিয়ে টেকনাফ মডেল থানা থেকে আদালতে চালান দেয়।

এবিষয়ে ছমিরা বেগম বাদী হয়ে টেকনাফ মডেল থানার তৎকালীন ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, একই থানার এসআই কামরুজ্জামান ও এএসআই ফকরুজ্জামান, এএসআই মিঠুন চন্দ্র দাস, এএসআই রতন চন্দ্র দাস ও কনস্টেবল মোঃ মামুনকে আসামী করে গত ২৩ আগস্ট সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত নম্বর-৪ (টেকনাফ) এ দন্ডবিধি ৩৮৫/৩৮৬/৩৪ ধারায় একটি ফৌজদারী দরখাস্ত দায়ের করেন। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাং হেলাল উদ্দিন বাদীনী ছমিরা বেগমের ২০০ ধারায় জবানবন্দী গ্রহন করার পর ফৌজদারী দরখাস্তটি সরাসরি ফৌজদারী কার্যবিধির ২০৩ ধারায় খারিজ করে দেন। খারিজ করা মামলাটির নম্বর সিআর : ১২১/২০২০ (টেকনাফ)।

বাদীনী ছমিরা বেগম সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাং হেলাল উদ্দিন যে খারিজ আদেশ দিয়েছেন, তা না দিয়ে ফৌজদারী দরখাস্তটি তদন্তের আদেশ দিতে পারতেন বলে অভিযোগ এনেছেন। ফৌজদারী দরখাস্তটিতে মামলার অনেক উপাদান থাকা সত্বেও দরখাস্তটি খারিজ আদেশ সঠিক ও যথার্থ হয়নি বলে অভিযোগ এনে কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল এর আদালতে দি কোড অব ক্রিমিনাল প্রসিডিওর ১৯৯৮ এর ৪৩৫/৪৩৬ ধারায় রিভিশন আবেদনটি রোববার দায়ের করেন। জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল রিভিশন আবেদনটির গ্রহনযোগ্যতা শুনানী শেষে সেটি গ্রহন করে নিম্ম আদালতের নথি তলব পূর্বক পরবর্তী ধার্য দিনে এ বিষয়ে শুনানির আদেশ দিয়েছেন। যার ক্রিমিনাল রিভিশন নম্বর : ১৯২/২০২০।

নাফ বার্তা/ এসএ


আর্কাইভ
October 2020
S S M T W T F
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  

ফেইসবুকে আমরা