পবিত্র ঈদুল আজহা, ত্যাগের আনন্দে মহিমান্বিত হবে মন

 ২০১৯-০৮-১১ ২২:৪৭:৪৬   বিভাগ: অন্যান্য

প্রতি বছরের মতো মুসলিম সম্প্রদায়ের নিকটে আবার এলো ত্যাগের মহিমায় চির ভাষ¦র পবিত্র ঈদুল আজহা। ঈদুল আজহা আমাদের দেশের মানুষের কাছে কোরবানির ঈদ নামে পরিচিত। বেশ কিছুদিন ধরে প্রস্তুতি ও ঈদের দিন মসজিদ বা ঈদগাহ ময়দানে ধনী গরীব, ছোট বড় নির্বিশেষে সব মুসলমান কাতারবন্দী হয়ে দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ আদায় করা হয়। নামাজ শেষে হিংসা বিদ্বেষ, ক্রোধ, লোভ লালসা তথা ভেতরের পশুত্ব ত্যাগের মধ্য দিয়ে আতœশুদ্ধি অর্জনের জন্য কেনা বা লালিত-পালিত পশু আল্লাহর নামে তা কোরবানি দেওয়াই ঈদের মূল প্রস্তুতি ও আনন্দ।

কোরবানির ইতিহাস সুপ্রাচীন। হযরত ইব্রাহীম (আ.) এর সুন্নত অনুসরণ করেই সারা বিশ্বের মুসলমানরা ১০ জিলহজ কোরবানি দিয়ে থাকেন। প্রায় চার হাজার বছর আগে হযরত ইব্রাহীম (আ.) স্বপ্নে তাঁর সবচেয়ে প্রিয় বস্তু কোরবানির জন্য মহান আল্লাহ তায়ালার নির্দেশ পেয়েছিলেন। আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য হযরত ইব্রাহীম (আ.) তাঁর ছেলে হযরত ঈসমাইল (আ.) কে কোরবানি দিয়ে দেন। কিন্ত পরম করুণাময়ের অপার কুদরতে হযরত ঈসমাইল (আ.)এর পরিবর্তে একটি দুম্বা কোরবানি হয়ে যায়।
পবিত্র ঈদুল আজহায় দেশের সর্বত্র একই সময়ে বিপুলসংখ্যক পশু কোরবানি করার ফলে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার যে সমস্য দেখা দেয়, তা মোকাবিলার প্রস্তুতি নিতে হবে। এজন্য সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভাগুলোকে কোরবানি পশুর বর্জ্য দ্রুত সরিয়ে ফেলার জন্য তৎপর হতে হবে। প্রতিটি পাড়া মহাল্লার মানুষ নিজ নিজ দায়িত্বে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার কাজে উদ্যোগি হলে পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের কাজ অনেকটাই সহজ হবে।
পাপাশি বর্তমানে যে এডিস মশার প্রাদূর্ভাব। তা কমাতে হলে অবশ্যই পরিস্কার ও পরিচ্ছন্নতা অতিব জরুরি। সেই সাথে গ্রামের বাইরে বিশেষ করে রাজধানী ও তার আশে পাশে যারা জীবিকার তাগিদে ছিলেন, ঈদে বাড়ি ফিরতে গিয়ে ডেঙ্গু বহন করে আসছেন কিনা, সেই ব্যাপারে সর্তক ও সচেতন হওয়া জরুরি। কোনো ডেঙ্গু বহনকারি ব্যক্তি বাড়ি ফিরলেও চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলা অবশ্যই জরুরি।
কিছুদিন আগে বন্যা, ছেলে ধরা নামেই গণফিটুনি, শিশু ধর্ষণ সবেচেয়ে উদ্বেগজনক ডেঙ্গুজ্বর। সব মিলিয়ে দেশের অনেক মানুষ ঈদ কাটবে নিরানন্দের। ত্যাগের মহিমায় ক্ষুদ্রতা ভুলে ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে মিলিত হওয়ার সুযোগ করে দেয় ঈদুল আজহা। আনন্দের এই সময়ে আমাদের উচিত দূর্গত, নিঃস্ব ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো। তাদের সাহায্য করা। এতে আনন্দ, সুখ ও সমৃদ্ধি অনেকগুন বেড়ে যাবে। পাশাপাশি ত্যাগের আনন্দে মহিমান্বিত হবে মন।
ঈদুল আজহার এই ত্যাগ ও আনন্দময় উৎসবে আমাদের অগণিত পাঠক লেখক, বিজ্ঞাপন দাতা ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি রইল শুভেচ্ছা। সবাইকে ঈদ মোবারক।

নজরুলের কবিতার মতো সবার প্রাণ বলে উঠবে—

ঈদ মোবারক, ঈদ মোবারক।/ দোস্ত দুশমন পর ও আপন/ সবার মহল আজি হউক রওনক / যে আছ দূরে যে আছ কাছে/ সবারে আজ মোর সালাম পৌঁছে’।


আর্কাইভ
August 2019
S S M T W T F
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031

ফেইসবুকে আমরা